গোয়ালন্দের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম মন্ডল আর নেই

নিজেস্ব প্রতিবেদক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১০:৩৮ AM, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২০

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মো. নুরুল ইসলাম মন্ডল (৪৮) সোমবার ভোরে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। তিনি বেশ কিছু দিন ধরে লিভার সমস্যাসহ নানা ধরনের জটিল রোগে ভুগছিলেন।

নুরুল ইসলাম মন্ডল গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ঘোড়া প্রতিক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছিলেন। আগামী ১০ অক্টোবর উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল।

পারিবারিক সূত্র জানায়, রোববার দুপুরে গোয়ালন্দ উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাঝে গাছের চারা বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য, সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলীর সাথে নুরুল ইসলাম মন্ডলও উপস্থিত ছিলেন।

সেখানে তিনি অসুস্থ্য হয়ে পড়লে তাঁকে দ্রুত উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে নেওয়া হয়। প্রাথমিক বিশ্রাম শেষে কিছুটা সুস্থ্যতা অনুভব করলে নুরু মন্ডল বাসায় ফিরে যান।

নুরু মন্ডলের মামা তোফাজ্জেল হোসেন তপু জানান, রোববার সন্ধ্যার পর থেকে তিনি ফের অসুস্থ্য হয়ে পড়লে রাত নয়টার দিকে সঙ্কটাপন্ন অবস্থায় তাঁকে দ্রুত সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়।

সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার ভোর পাঁচটার দিকে মৃত্যু বরণ করেন। তাঁর দুই স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়েসহ অসংখ্য রাজনৈতিক সহকর্মী ও শুভাকাঙ্খি রয়েছে।

এর আগে নুরুল ইসলাম মন্ডলের রক্তক্ষলণ সহ নানা জটিল সমস্যা দেখা দিলে আশঙ্কাজনক অবস্থায় গত ২৭ আগষ্ট বিকেলে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে আইসিইউতে চিকিৎসা শেষে গত ৭ সেপ্টেম্বর সুস্থ্য হলে হাসপাতাল ছেড়ে ঢাকার বাসায় অবস্থান করেন।

গত শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) সকালে তিনি গোয়ালন্দে ফিরে আসেন। এসময় নুরু মন্ডলের পরিবার ছাড়াও রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী ও তাঁর কন্যা কানিজ ফাতেমা চৈতীও উপস্থিত ছিলেন।

নুরুল ইসলাম মন্ডল দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক সদস্য ছিলেন। এরপর দৌলতদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

পরবর্তীতে তিনি গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিন হন। কয়েক বছর আগে সন্ত্রাসীদের ছোড়া গুলি তাঁর শরীরে লাগলে তাৎক্ষনিক চিকিৎসায় তিনি বেঁেচ গেলেও নানা জটিল সমস্যায় ভুগছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন :