দেবগ্রাম ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের ছেলে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত

নিজেস্ব প্রতিবেদক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৮:৩০ PM, ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দেবগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি হাফিজুল ইসলামের একমাত্র ছেলে মেহেদী হাসান বকুল (৩৩) মাটিবাহি ট্রাক চাপায় মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে।

বুধবার বিকেলে সে গোয়ালন্দ থেকে গোয়ালন্দ-ফরিদপুর-তাড়াইল সড়ক দিয়ে মোটরসাইকেল চালিয়ে গোয়ালন্দ ফিরছিল। এসময় তার সাথে বকুলের সহকর্মী মিলন শেখ (৩২) আহত হন। বকুল দেড় বছর আগে দুবাই থেকে দেশে ফিরে আসে।

নিহত বকুলের মোটরসাইকেল আরোহী আহত মিলন শেখ মুঠোফোনে এ প্রতিবেদককে জানান, বুধবার বিকেলে বকুলের বিয়াই ফরিদপুর অপরাধ তদন্ত বিভাগ (এন.এস.আই) এর সহকারী পরিচালক (ডিডি) সাহিদুর রহমান মোটরসাইকেলে কলে ফরিদপুর পৌছে দিতে মেহেদী হাসান বকুলকে অনুরোধ করে।

খবর পেয়ে মেহেদী হাসান বকুল আমাকে সঙ্গে নিয়ে গোয়ালন্দের বালিয়াডাঙ্গা থেকে তুলে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে ফরিদপুরের বাসায় পৌছে দিতে যাই। এসময় মোটরসাইকেল আমি চালাচ্ছিলাম।

বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে ফরিদপুর শহরের টেপাখোলা এলাকার বাসায় এনএসআই এর সহকারী পরিচালক সাহিদুর রহমানকে নামিয়ে দিয়ে আমরা দুজনে মোটরসাইকেল চালিয়ে গোয়ালন্দ ফিরছিলাম। পথিমধ্যে বকুল নিজে মোটরসাইকেল চালিয়ে যাওয়ার ইচ্ছা পোষণ করে।

পরে বকুল নিজেই মোটরসাইকেল চালিয়ে আসার সময় টেপাখোলা থেকে প্রায় এক কিলোমিটার গোয়ালন্দের দিকে গোয়ালন্দ-ফরিদপুর-তাড়াইল সড়কের (বেড়িবাঁধ) টেপাখোলা সুইচগেট মোহাম্মদপুর এলাকায় পৌছলে পিছন থেকে একটি দ্রুতগামী মাটিবাহি ট্রাক পাশ থেকে ধাক্কা মারে।

এসময় আমরা দুইজনেই ঘটনাস্থলে রাস্তায় পড়ে গেলে আমি সামান্য আহত হই। তবে বকুল অনেক লম্বা মানুষ হওয়ায় রাস্তা জুড়ে পড়ে গেলে ট্রাকের একটি চাকা তার মাথার ওপর দিয়ে উঠে যায়।

এতে ঘটনাস্থলেই বকুল গুরুতর জখম হয়। স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মেহেদী হাসান বকুলের মৃত্যু ঘোষনা করেন।

এদিকে একমাত্র ছেলের মৃত্যুর খবর পেয়ে দেবগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান ও আ.লীগ নেতা হাফিজুল ইসলাম ও তাঁর স্ত্রী বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। নিকট স্বজনরা খবর পেয়ে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পৌছলে এক হৃদয় বিদারক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

আপনার মতামত লিখুন :